ব্রেকিং:
১২সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটনস্পট নিলগিরি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দিবে কর্তৃপক্ষ। প্রতিশ্রুতি পূরণে আওয়ামী লীগ নেতাদের দায়িত্বশীল হতে হবে:শেখ হাসিনা শেখ হাসিনার সরকার মানুষকে শুধু স্বপ্ন দেখায় না,স্বপ্নকে বাস্তবায়ন:বীর বাহাদুর ইউএনও ওয়াহিদার সর্বোচ্চ চিকিৎসার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আগস্টেও চমক রপ্তানি আয়ে ২০ পণ্যে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি সমন্বিতভাবে কাজ করায় এ বছর ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে : এলজিআরডি মন্ত্রী করোনার প্রভাবে দেশে খাদ্য সংকট হবে না : কৃষিমন্ত্রী সব ভূমিসেবা এক ছাদের নিচে আসছে শহরেও বাড়ছে সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার করোনার মধ্যেও দ্রুত ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবো :অর্থমন্ত্রী সৌদিতে প্রবেশের অনুমতি পেল বাংলাদেশসহ ২৫ দেশ অপরাধী যেই হোক, আইনের আওতায় আনা হবে: কাদের হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার করা হবে : নৌ প্রতিমন্ত্রী চীনের চেয়েও বাংলাদেশের ব্রডব্যান্ড গতিশীল! বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের নেটওয়ার্কে আসছে সাগরে মাছ
  • মঙ্গলবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৭

  • || ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

দৈনিক বান্দরবান
সর্বশেষ:
বান্দরবানে তহজিংডং এর কর্মশালা অনুষ্ঠিত বান্দরবান বন বিভাগের উদ্যোগে বি‌ভিন্ন শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠা‌নে চারা বিতরণ সব দেশের সঙ্গে বাংলাদেশও ভ্যাকসিন পাবে শিক্ষার্থীদের অটো প্রমোশনের ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী ২১ শে আগস্ট ও বিএনপির ঐতিহাসিক বিচারহীনতার চরিত্র জরিপ অধিদপ্তরে `বঙ্গবন্ধু কর্নার` দেশে চীনের করোনা ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিল সরকার ডাইনামিক নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন শেখ হাসিনা মোশতাক-জিয়া চক্র জাতির বিবেককে কারারুদ্ধ করে রেখেছিল ॥ কাদের প্রধানমন্ত্রীর ৩১ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন আজ বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বৃদ্ধির আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের কুশীলবদের চিহ্নিত করতে কমিশন হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রনীতিতেই রোহিঙ্গারা ফিরে যাবে সংশোধন হচ্ছে জাতীয় শিক্ষানীতি কাজ করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও গ্যাভি, বাংলাদেশ তিন কোটি ৪০ লাখ ভ্যাকসিন পাবে যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় এক শিল্পীর ছোঁয়া ছয় দফা ছিল বঙ্গবন্ধুর একান্ত চিন্তার ফসল খুনিদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়ায় বেগম জিয়াও অপরাধী : তথ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথ ধরেই দেশকে এগিয়ে নিতে চাই : প্রধানমন্ত্রী খালেদা নয়, তারেকের অবসর চায় বিএনপি মিয়ানমারের কূটনীতিককে কড়া জবাব দিলো বাংলাদেশ দেড় হাজার সাংবাদিক ১০ হাজার টাকা করে অনুদান পাবেন: তথ্যমন্ত্রী সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য টেলিমেডিসিন সেবা চালু সারাদেশে ৮ হাজার শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব গড়ে তোলা হয়েছে:পলক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইসোলেশন ও ট্রিটমেন্ট সেন্টার চালু জুলাইয়ে চীনের করোনার টিকার তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা বাংলাদেশে হতে পারে শীর্ষেন্দুকে আশ্বস্ত করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী ‘স্বপ্ন সত্যি হলে এর চেয়ে আনন্দ আর কী’ যুক্তরাষ্ট্রের ‘গ্রেট প্লেস অ্যাওয়ার্ড’ পেল হাতিরঝিল প্রকল্প লন্ডনে বঙ্গবন্ধুর ৭ মাচের্র ঐতিহাসিক ভাষণ তিনটি ভাষায় অনুবাদের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ হাই কমিশন। ভাষা তিনটি হচ্ছে—ওয়েলস, স্কটিশ ও আইরিশ। হাইকমিশনের পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার (১০ মার্চ) এ কথা জানানো হয়। বঙ্গবন্ধু জাতীয় ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপে বান্দরবান-নোয়াখালীর ম্যাচ ড্র নিজের ইচ্ছেমতো আর নয়, চিকিৎসকদের রোগী দেখার ফি নির্ধারণ করে দেবে সরকার........স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক আকাশ থেকে পদ্মাসেতুর ছবি তুললেন প্রধানমন্ত্রী পাহাড়ে সন্ত্রাস চাঁদাবাজি বন্ধে জিরো টলারেন্স দেখানো হবে:পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বীর বাহাদুরের আর্দশে অনুপ্রাণিত হয়ে বিএনপি ছেড়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিল সোনাইছড়ির অর্ধ শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী বান্দরবানে গাছ কাটতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে একজনের মৃত্যু: বান্দরবানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট ১৮ এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট প্রতিযোগিতার সমাপনী পার্বত্য জেলা বান্দরবান ৩০০ নং আসনে ৩ জন এমপি প্রার্থী আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬ষ্ঠ বারের মত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী বীর বাহাদুর উশৈসিং কে পুনরায় নির্বাচিত করে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে বান্দরবান শহর শাখার ৪নং ওয়ার্ড পশ্চিম শাখা স্বেচ্ছাসেবক লীগ এর আয়োজনে বিশাল কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার সকারের সফলতায় বান্দরবানের রুমাতে পৌঁছে গেল নতুন বছরের নতুন বই বান্দরবানে নির্বাচনে মহাজোটেরমধ্যে আ:লীগ’র প্রার্থী থাকলে ও নেই জাপা আপীলে বৈধতা পেলেন বান্দরবানের বিএনপির মাম্যাচিং পার্বত্য এলাকার উন্নয়ন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও পাহাড়ের স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে হবে.............. বীর বাহাদুর উশৈসিং
১৪৬

সংরক্ষিত বন ও শ্মশান দখল

রাঙ্গুনিয়ায় এক ভিক্ষুর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ

দৈনিক বান্দরবান

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০২০  

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় পদুয়া ইউনিয়নের ফালহারিয়ায় জঙ্গলের টিলায় এক ছদ্মবেশী স্বঘোষিত ভিক্ষুর বিরুদ্ধে সরকারি ও ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি ও বনভূমি দখল, স্থানীয়দের ওপর নির্যাতন, হিন্দুদের শ্মশান উচ্ছেদ, মন্দির দখল, মুসলমানদের ধর্ম নিয়ে বিষোদ্গার, এমনকি মিয়ানমারের নাগরিকদের আশ্রয় দেওয়ার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এসব নিয়ে শরণংকর ভিক্ষুর নামের এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ডজনখানেক মামলা হয়েছে। এই ভিক্ষুর ঔদ্ধত্বপূর্ণ আচরণে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। 

স্থানীয়রা জানান, এই স্বঘোষিত ভিক্ষু রনি ড্রাইভার নামেই পরিচিত ছিলেন। মা-বাবার বিচ্ছেদের পর কিশোর বেলায় তার ঠাঁই হয় শুলক বহর পাঁচকড়ি বাবুর গ্যারেজে। সেখানে গাড়ি চালানো শেখে রাউজান মুন্সিরহাটের এক গাড়ির মালিকের গাড়ি চালান তিনি অনেকদিন। সেই গাড়ির মালিক রাঙ্গুনিয়া পদুয়ার জয়সেন বড়ুয়ার কাছে গাড়িটি বিক্রি করে দিলে রনি পদুয়ায় আসেন। পরে পারিবারিক আর্থিক দৈন্যে মামার পরামর্শে বৌদ্ধমন্দিরে শ্রমণ জীবন শুরু করেন রনি ড্রাইভার। এরপর সন্ন্যাসীর বেশে পদুয়ার ফলহরিয়া সংরক্ষিত বনে এসে নাম পাল্টে শরণংকর নামধারণ করেন রনি।

প্রথমে হলুদ একটি কাপড় আর উপরে ত্রিপল দিয়ে শুরু করলেও পরে বেড়ার স্থাপনা, এরপর ইটপাথরের স্থাপনা শুরু করেন শরণংকর এবং ধীরে ধীরে সাত-আট বছরের ব্যবধানে ১০০ একরেরও বেশি জায়গা দখল করেন। স্থানীয় সংসদ সদস্যের উন্নয়ন কর্মকান্ডে ফলাহরিয়া যাওয়ার দুর্গম রাস্তা সুগম হয়, শিলক নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণ, কাঁচা রাস্তা পাকা করাসহ নানা কাজের ফলে ভিক্ষু শরণংকরের অনুদান প্রাপ্তির পরিমাণও বাড়তে থাকে। অনুদান প্রাপ্তির সঙ্গে এই দখলযজ্ঞ চলতে থাকলে বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় হিন্দুদের শ্মশান নিয়ে এবং বিহার থেকে আড়াই কিলোমিটার আগে কালিন্দিরানী সড়কে মুসলমানদের জায়গার ওপর বুদ্ধমূর্তিসহ তোরণ স্থাপনকে কেন্দ্র করে মোসলমানদের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন শরণংকর।

 

স্থানীয়রা জানান, তারা ভেবেছিলেন, রাঙ্গুনিয়ার ফলাহরিয়ার পাহাড়ে ২০১২ সালে ছনের ছাউনি দিয়ে ছোট্ট একটি ঘর বানিয়ে থাকা শরণংকর (রনি ড্রাইভার) হয়তো কিছুদিন ধ্যান করে চলে যাবেন। কিন্তু তিনি আর যাননি। দিন দিন দখলকৃত ভূমির আয়তন বাড়ানো, বনবিভাগের জায়গায় টিনের ছাউনি দিয়ে ঘর বানানো, আশপাশের কয়েক একর বনভূমি দখল করেন। এর কিছুদিন যেতে না  যেতেই দখল করা বনভূমিতে পাকা স্থাপনা নির্মাণ করা শুরু করেন শরণংকর। এখন পর্যন্ত ১০০ একর বনভূমি দখল করে ‘জ্ঞানশরণ মহাঅরণ্য বৌদ্ধ বিহারের’ নাম দিয়ে  ছোটবড় বেশ কিছু বুদ্ধমূর্তি, ভিক্ষু-শ্রমণ ট্রেনিং সেন্টার, আবাসিক ভবন মিলিয়ে দুই ডজন স্থাপনা নির্মাণ করেছেন তিনি। শুধু তাই নয়, আশপাশের আরও অর্ধশতাধিক একর বনভূমি দখল করার প্রক্রিয়াও শুরু করেছেন। সেসব জায়গায় বন বিভাগের লাগানো লক্ষাধিক চারা গাছ শরণংকর ও তার সহযোগীরা রাতের আঁধারে কেটে  ফেলেছেন বলে জানিয়েছে বন বিভাগ।

গত ৮ বছরে বনভূমির পাহাড় কেটে পাকা স্থাপনা, রাস্তা নির্মাণ ও অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হলেও স্থানীয় প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কিছুই করতে পারেনি। প্রায় অর্ধ কোটি টাকা দামের গাড়িতে চড়েন তিনি। সেই পাহাড়ে গড়ে তুলেছেন এক গোপন সাম্রাজ্য। তার বাস করা পাকা দালানটির অর্ধেকটা মাটির নিচে। দালানের শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রটিও একেবারে কাছে না গেলে দেখা যায় না। পানি সরবরাহের জন্য লাইন ও পানির ট্যাংকও সেখানে আছে। প্রায় ২০টির মতো বৈদ্যুতিক সংযোগও ছিল যেগুলো অবৈধ বলে সম্প্রতি কাটা হয়েছে। জীবনের সব মোহমায়া-ভোগ বিলাস ত্যাগ করে সন্ন্যাস জীবন যাপন করছেন বলে কথিত ভিক্ষু বিপুল সম্পত্তি ভোগ করছেন। সেই ভিক্ষু শরণংকরের এই বাড়িটি পাহারা দিচ্ছে দুটো জার্মান শেফার্ড কুকুর।

মিয়ানমারের লোকজনকে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে এই বৌদ্ধ ভিক্ষুর বিরুদ্ধে। পদুয়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান বলেছেন, আমরা প্রথমে শরণংকরকে সহযোগিতাই করেছি। কিন্তু পরে কথাবার্তা আর চালচলনে সন্দেহ বাড়তে থাকে। পাহাড়ের ওপরে আন্ডারগ্রাউন্ড ঘর বানানো হয়েছে। কেউ সেখানে যেতে পারে না। কিছুদিন আগে মিয়ানমারের নাগরিকরা তার বিহারে এসেছিল। পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. বদিউজ্জামান বলেন, তার (শরণংকর) প্রধান উদ্দেশ্য জমি দখল করা। তিনি মিয়ানমার থেকে ভিক্ষু এনে এখানে স্থাপনা তৈরি করেছেন। সেটা আমাদের ও দেশের জন্য হুমকি।

তবে শরণংকর থেরো এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, তার বিহারে তল্লাশি করে দেখা হোক। আর গাড়ির কথা জানতে চাইলে শরণংকর ভিক্ষু বলেন, গাড়ি চড়তে তো নিষেধ নেই।

সম্প্রতি দুর্গাপূজার আগেই শ্মশান ও রাধাকৃষ্ণ মন্দির দখলকারী ভিক্ষু শরণংকরকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন সনাতন ধর্মাবলম্বী ঐক্য পরিষদের নেতারা। শুধু রাঙ্গুনিয়া আর চট্টগ্রামেই নয়, ঢাকাতেও মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেন তারা। আল্লাহ ও রসুলকে (সা.) কটাক্ষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মবিদ্বেষী প্রচার, বলপ্রয়োগে মন্দির, শ্মশান ও বনভূমি দখলের দায়ে চট্টগ্রামের কথিত ভিক্ষু শরণংকরকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন দেশের আলেম-ওলামারাও।

ফলাহারিয়া গ্রামের শাহ সুফি পাঠান আউলিয়া মাজারের মুতওয়াল্লি এবং পাঠান আউলিয়া দাখিল মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ হাকিম উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিন পর্যন্ত মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ সবাই সম্প্রীতির মাধ্যমে আমরা বসবাস করে আসছি। ৭-৮ বছর আগে হাটহাজারী উপজেলার শরণংকর ভান্তে এখানে এসেছেন। তিনি এই এলাকায় বহিরাগত। তিনি আসার পর থেকে উনার বিভিন্ন কার্যক্রমে আমাদের এখানে বড়ুয়া-মুসলমানদের সম্প্রীতি নষ্ট হতে যাচ্ছে। সারা দিন তিনি মাইক ব্যবহার করেন, এতে স্কুল-মাদ্রাসার পড়ালেখার ক্ষতি হয়। যেদিকে আমরা হাঁটাচলা করি সেদিকে তিনি মূর্তি বসান।

তিনি বলেন, আবদুল গফুর, মুছা, হাজেরা বেগমদের জায়গা জোরপূর্বক দখল করে বিহারের গেট করেছেন শরণংকর। গফুরের বাগানটা তিনি কেটে দিয়েছেন। সেখানে ঘর ছিল, সেটাও ভেঙে দিয়েছেন। বিহারে আগতদের মধ্যে প্রায় সবাই বহিরাগত, অচেনা। স্থানীয়রা শরণংকর ভান্তের বিহারে কম যান। মিয়ানমার থেকেও বিভিন্ন মানুষজন শরণংকর ভান্তের কাছে আসেন।

মুহাম্মদ হাকিম উদ্দিন বলেন, শরণংকর ভান্তের শত একর জায়গা দখল করা নিয়ে আমরা বন বিভাগের কাছে গিয়েছি, সেখানে প্রতিকার পাইনি। পুলিশ প্রশাসনের কাছে গিয়েছি, তারাও কিছু করেনি। শেষ পর্যন্ত আমরা তথ্যমন্ত্রীর কাছে গিয়েছি, উনাকে বিস্তারিত বলেছি। তিনি স্থানীয়ভাবে মেম্বার/চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দিয়েছেন।

দৈনিক বান্দরবান
দৈনিক বান্দরবান
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর