ব্রেকিং:
বাংলাদেশ এখন বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে : শেখ হাসিনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমাদের সুদৃঢ় পারিবারিক বন্ধন: প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতাকে হত্যার পর ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছিল : প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউট হবে: প্রধানমন্ত্রী জ্বালানি তেলে বেশি ভর্তুকি দিলে উন্নয়ন থেমে যাবে : প্রধানমন্ত্রী কথায় কথায় এত হতাশ হবেন না: প্রধানমন্ত্রী খাদ্যের হাহাকার দেশের কোন গ্রামেও নেই ॥ শেখ হাসিনা ক্ষমতা বাহাদুরি দেখানোর জন্য নয়, জনগণের কল্যাণে লাগান: রাষ্ট্রপতি ‘উইটসা এমিনেন্ট পার্সনস অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে দেশ এগিয়ে নিচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব মানবতার স্বার্থে দৃঢ় অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার এখনই সময়ঃ ইউনেস্কোতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজেলের দাম বাড়লেও ট্রেনের টিকেটের দাম বাড়বে না: রেলমন্ত্রী রিমোট লার্নিং, অনলাইন শিক্ষাকে জনসম্পদ ঘোষণা করুন: ইউনেস্কোকে প্রধানমন্ত্রী সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অসাম্প্রদায়িক দেশ প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবো: প্রধানমন্ত্রী ফরাসি ব্যবসায়ীদের স্বাগত জানাতে বাংলাদেশ প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী প্রবাসীদের প্রতি দায়িত্ব পালনে কূটনীতিকদের আন্তরিক হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নাম রেজুলেশনসহ কেন্দ্রে পাঠাতে শেখ হাসিনার নির্দেশনা বঙ্গবন্ধুর নাম আর মুছে ফেলা যাবে না:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘কোনো মেজরের বাঁশির ফুঁতে দেশ স্বাধীন হয়নি’:শেখ হাসিনা বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য শক্তি-আইটিসিটি খাতে বিদেশি বিনিয়োগের অপেক্ষায়: প্রধানমন্ত্রী বিদেশি বিনিয়োগকারীদের নিয়ে দেশে আসুন,আমি দেখব: প্রবাসীদের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দোসররা এখনো অনলাইনে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বকে জলবায়ু অভিবাসীদের দায়িত্ব ভাগ করে নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কার্বন নিঃসরণে প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘনে বিপদ ঘনীভূত হচ্ছে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে বিনিয়োগ করুন, সমস্যা থাকলে দূর করা হবে: প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় নারীর অংশীদারিত্ব বাড়ানোর আহ্বান যে দলের নেতৃত্বের ঠিক নেই, সেই দলকে কেনো ভোট দেবে জনগণ: প্রধানমন্ত্রী মারাত্মক পরিণতি থেকে কোনো দেশই মুক্ত নয়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর জন্য আরও তহবিল গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে শহর-গ্রামের ব্যবধান কমে আসছে: পলক প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মধ্যে সেতু হিসেবে গড়ে উঠবে বাংলাদেশ:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শক্তিশালী যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করছে সরকারঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর কাজ করা উচিত দারিদ্র্য বিমোচনে : প্রধানমন্ত্রী দেশের ভাবমূর্তি নষ্টকারীদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে:পায়রা সেতু উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী আসুন জাতিসংঘকে আমাদের আশার বাতিঘর বানাই: প্রধানমন্ত্রী আগামী জানুয়ারি থেকে নিয়মিত ক্লাস শুরু হবে: শিক্ষামন্ত্রী শিগগির সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন তৈরির অঙ্গীকার আইনমন্ত্রীর সহযোগিতাধর্মী জাতিসংঘ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর কৃষকদের ভর্তুকি দিতে নিষেধ করা হয়েছিল, কিন্তু আমরা শুনিনি: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করা হয়েছে জাতিসংঘে জাতিসংঘের এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার পেলেন প্রধানমন্ত্রী ইউএন গার্ডেনে বঙ্গবন্ধুর নামে বেঞ্চ উৎসর্গ ঐতিহাসিক ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী বিদেশেও দেশের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বিএনপি: কাদের বঙ্গবন্ধুর ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্র্যান্ট ডে’ ঘোষণা টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে করোনা টিকার মেধাস্বত্ব উন্মুক্ত চাইবেন প্রধানমন্ত্রী নদীর আবর্জনা সরাতে বিনিয়োগ করতে চায় স্পেন এখন কংক্রিটের পিলার ও স্টিলের ফ্রেম দিয়ে ঘর করে দেব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের মাটিতেই বিশ্বমানের রোবট তৈরি হবে : পলক আগামী দিনের রাজনীতি হতে হবে জ্ঞাননির্ভর: ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনার সমতুল্য কোনো রাজনীতিবিদ দক্ষিণ এশিয়ায় নেই: পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ১৯ মাস পর বিদেশ সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সবাইকে নির্বাচনমুখী করতেই প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ২৪ সেপ্টেম্বর টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সাহিত্য মানুষের মধ্যে গভীর রেখাপাত করতে পারে : প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্বেই স্বাধীন হয় বাংলাদেশ: কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী ২৫ মার্চ এক মিনিট অন্ধকারে থাকবে গোটা দেশ কক্সবাজারে হচ্ছে সুড়ঙ্গ সড়ক! শিক্ষাক্ষেত্রে রাজশাহীকে মিসিগান শহরের মতো সম্ভাবনাময় উল্লেখ করে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার ছোট উদ্যোক্তাদের জামানতবিহীন ঋণ দিতে ‘স্টার্ট-আপ ফান্ড’ গঠন বিশ্বের সবচেয়ে বড় অত্যাধুনিক ফ্লাওয়ার মিল চালু সিটি ইকোনমিক জোনে বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেল পুনরুদ্ধারে ডিএসসিসির মাস্টারপ্ল্যান স্বর্ণের দাম ভরিতে কমল ২০৪১ টাকা বিএনপির আন্দোলনের বিকল্প হচ্ছে আগুন সন্ত্রাস, অপরাজনীতি আর গুজব সৃষ্টি করা বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৃত্তি পাচ্ছেন সাড়ে ১০ হাজার শিক্ষার্থী ৭ মার্চের ভাষণই স্বাধীনতার ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ইতালির রাষ্ট্রপতির মুখে বাংলাদেশের সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা বান্দরবা‌নে ম্রোদের পাশে সবসময় আছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ফের পর্যালোচনা করা হবে:আইনমন্ত্রী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বছরেই:স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের সুপারিশ পেয়েছে বাংলাদেশ ১২সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটনস্পট নিলগিরি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দিবে কর্তৃপক্ষ। প্রতিশ্রুতি পূরণে আওয়ামী লীগ নেতাদের দায়িত্বশীল হতে হবে:শেখ হাসিনা শেখ হাসিনার সরকার মানুষকে শুধু স্বপ্ন দেখায় না,স্বপ্নকে বাস্তবায়ন:বীর বাহাদুর ইউএনও ওয়াহিদার সর্বোচ্চ চিকিৎসার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আগস্টেও চমক রপ্তানি আয়ে ২০ পণ্যে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি সমন্বিতভাবে কাজ করায় এ বছর ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে : এলজিআরডি মন্ত্রী সব ভূমিসেবা এক ছাদের নিচে আসছে শহরেও বাড়ছে সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার করোনার মধ্যেও দ্রুত ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবো :অর্থমন্ত্রী সৌদিতে প্রবেশের অনুমতি পেল বাংলাদেশসহ ২৫ দেশ অপরাধী যেই হোক, আইনের আওতায় আনা হবে: কাদের চীনের চেয়েও বাংলাদেশের ব্রডব্যান্ড গতিশীল! বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের নেটওয়ার্কে আসছে সাগরে মাছ
  • শনিবার   ২৭ নভেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রহায়ণ ১৩ ১৪২৮

  • || ২০ রবিউস সানি ১৪৪৩

দৈনিক বান্দরবান
সর্বশেষ:
বাংলাদেশ এখন বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলবে : শেখ হাসিনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমাদের সুদৃঢ় পারিবারিক বন্ধন: প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতাকে হত্যার পর ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছিল : প্রধানমন্ত্রী জ্বালানি তেলে বেশি ভর্তুকি দিলে উন্নয়ন থেমে যাবে : প্রধানমন্ত্রী কথায় কথায় এত হতাশ হবেন না: প্রধানমন্ত্রী খাদ্যের হাহাকার দেশের কোন গ্রামেও নেই ॥ শেখ হাসিনা ক্ষমতা বাহাদুরি দেখানোর জন্য নয়, জনগণের কল্যাণে লাগান: রাষ্ট্রপতি ‘উইটসা এমিনেন্ট পার্সনস অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে দেশ এগিয়ে নিচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব মানবতার স্বার্থে দৃঢ় অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার এখনই সময়ঃ ইউনেস্কোতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজেলের দাম বাড়লেও ট্রেনের টিকেটের দাম বাড়বে না: রেলমন্ত্রী রিমোট লার্নিং, অনলাইন শিক্ষাকে জনসম্পদ ঘোষণা করুন: ইউনেস্কোকে প্রধানমন্ত্রী সম্মিলিত প্রচেষ্টায় অসাম্প্রদায়িক দেশ প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবো: প্রধানমন্ত্রী ফরাসি ব্যবসায়ীদের স্বাগত জানাতে বাংলাদেশ প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী প্রবাসীদের প্রতি দায়িত্ব পালনে কূটনীতিকদের আন্তরিক হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নাম রেজুলেশনসহ কেন্দ্রে পাঠাতে শেখ হাসিনার নির্দেশনা বঙ্গবন্ধুর নাম আর মুছে ফেলা যাবে না:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘কোনো মেজরের বাঁশির ফুঁতে দেশ স্বাধীন হয়নি’:শেখ হাসিনা বাংলাদেশ নবায়নযোগ্য শক্তি-আইটিসিটি খাতে বিদেশি বিনিয়োগের অপেক্ষায়: প্রধানমন্ত্রী বিদেশি বিনিয়োগকারীদের নিয়ে দেশে আসুন,আমি দেখব: প্রবাসীদের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দোসররা এখনো অনলাইনে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বকে জলবায়ু অভিবাসীদের দায়িত্ব ভাগ করে নিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কার্বন নিঃসরণে প্রতিশ্রুতি লঙ্ঘনে বিপদ ঘনীভূত হচ্ছে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে বিনিয়োগ করুন, সমস্যা থাকলে দূর করা হবে: প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় নারীর অংশীদারিত্ব বাড়ানোর আহ্বান যে দলের নেতৃত্বের ঠিক নেই, সেই দলকে কেনো ভোট দেবে জনগণ: প্রধানমন্ত্রী মারাত্মক পরিণতি থেকে কোনো দেশই মুক্ত নয়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর জন্য আরও তহবিল গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে শহর-গ্রামের ব্যবধান কমে আসছে: পলক প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মধ্যে সেতু হিসেবে গড়ে উঠবে বাংলাদেশ:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শক্তিশালী যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করছে সরকারঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর কাজ করা উচিত দারিদ্র্য বিমোচনে : প্রধানমন্ত্রী দেশের ভাবমূর্তি নষ্টকারীদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে:পায়রা সেতু উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রী আসুন জাতিসংঘকে আমাদের আশার বাতিঘর বানাই: প্রধানমন্ত্রী আগামী জানুয়ারি থেকে নিয়মিত ক্লাস শুরু হবে: শিক্ষামন্ত্রী শিগগির সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন তৈরির অঙ্গীকার আইনমন্ত্রীর সহযোগিতাধর্মী জাতিসংঘ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর কৃষকদের ভর্তুকি দিতে নিষেধ করা হয়েছিল, কিন্তু আমরা শুনিনি: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করা হয়েছে জাতিসংঘে জাতিসংঘের এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার পেলেন প্রধানমন্ত্রী ইউএন গার্ডেনে বঙ্গবন্ধুর নামে বেঞ্চ উৎসর্গ ঐতিহাসিক ঘটনা: প্রধানমন্ত্রী বিদেশেও দেশের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বিএনপি: কাদের বঙ্গবন্ধুর ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্র্যান্ট ডে’ ঘোষণা টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে করোনা টিকার মেধাস্বত্ব উন্মুক্ত চাইবেন প্রধানমন্ত্রী নদীর আবর্জনা সরাতে বিনিয়োগ করতে চায় স্পেন এখন কংক্রিটের পিলার ও স্টিলের ফ্রেম দিয়ে ঘর করে দেব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের মাটিতেই বিশ্বমানের রোবট তৈরি হবে : পলক আগামী দিনের রাজনীতি হতে হবে জ্ঞাননির্ভর: ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনার সমতুল্য কোনো রাজনীতিবিদ দক্ষিণ এশিয়ায় নেই: পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ১৯ মাস পর বিদেশ সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সবাইকে নির্বাচনমুখী করতেই প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন ২৪ সেপ্টেম্বর টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সাহিত্য মানুষের মধ্যে গভীর রেখাপাত করতে পারে : প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্বেই স্বাধীন হয় বাংলাদেশ: কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী ২৫ মার্চ এক মিনিট অন্ধকারে থাকবে গোটা দেশ কক্সবাজারে হচ্ছে সুড়ঙ্গ সড়ক! শিক্ষাক্ষেত্রে রাজশাহীকে মিসিগান শহরের মতো সম্ভাবনাময় উল্লেখ করে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার ছোট উদ্যোক্তাদের জামানতবিহীন ঋণ দিতে ‘স্টার্ট-আপ ফান্ড’ গঠন বিশ্বের সবচেয়ে বড় অত্যাধুনিক ফ্লাওয়ার মিল চালু সিটি ইকোনমিক জোনে বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেল পুনরুদ্ধারে ডিএসসিসির মাস্টারপ্ল্যান স্বর্ণের দাম ভরিতে কমল ২০৪১ টাকা বিএনপির আন্দোলনের বিকল্প হচ্ছে আগুন সন্ত্রাস, অপরাজনীতি আর গুজব সৃষ্টি করা বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বৃত্তি পাচ্ছেন সাড়ে ১০ হাজার শিক্ষার্থী ৭ মার্চের ভাষণই স্বাধীনতার ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ধারাবাহিক সরকার গঠন করে মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতালির রাষ্ট্রপতির মুখে বাংলাদেশের সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা বান্দরবা‌নে ম্রোদের পাশে সবসময় আছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ফের পর্যালোচনা করা হবে:আইনমন্ত্রী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বছরেই:স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের সুপারিশ পেয়েছে বাংলাদেশ ১৭০ বছর পরে ফিরে আসলো বাঙ্গালীর সোনালী ঐতিহ্য মসলিন সমালোচনার পাশাপাশি ভালো কাজের স্বীকৃতি দিন: এলজিআরডিমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে হবে চারটি স্মৃতিস্তম্ভ বান্দরবান পার্বত্য জেলায় হচ্ছে স্মাট ভিলেজ করোনা সঙ্কট কাটিয়ে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ নির্মাণের আশা নৌপথে জাপান থেকে দিয়াবাড়ী আসবে মেট্রোরেল

কলঙ্কিত দিন থেকে আলোর পথে

দৈনিক বান্দরবান

প্রকাশিত: ১২ নভেম্বর ২০২১  

১২ নভেম্বর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল দিবস। এ সম্পর্কে ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘১৯৯৬ সালে যখন ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করি তখন সমালোচনা করা হয়েছিল, অনেকেই বলেছিল আমি প্রতিশোধ নিচ্ছি। বিএনপি সেদিন খুনিদের রক্ষা করতে হরতাল ডেকেছিল। বিচারপতির পরিবারের ওপর হামলা হয়েছিল। একজন সাধারণ মানুষের হত্যার বিচার যেভাবে হয়, জাতির পিতার হত্যার বিচারও সেভাবেই হয়েছে।’

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার সম্পন্ন হলেও কয়েকজন খুনি এখনও ধরা ছোঁয়ার বাইরে। ১৯৯৬- এ আওয়ামী লীগ শাসনামলে বঙ্গবন্ধুর ২০ খুনিকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন বঙ্গবন্ধুর আবাসিক সহকারী মুহিতুল ইসলাম৷ এরপর মামলা চলে প্রায় ১৩ বছর৷ বিচারিক আদালত ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিলেও হাইকোর্ট ১২ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে৷ দীর্ঘ ২১ বছর বিচার বন্ধ থাকার মূল কারণ ছিল কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ। যা বাতিল হওয়ার ফলে খুনিদের বিচারকার্য সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে এবং এজন্যই আজকের এই দিনটি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার উজ্জ্বলতম দিন, গৌরবময় দিন।

 বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের দিনটি আরো বেশি সার্থকভাবে পালন করতে চাই আমরা। 

আসলে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর খুনিদের রক্ষার জন্য বাংলাদেশের সংবিধান জুড়ে এক অদ্ভুত কেলেঙ্কারির ইতিহাস রচিত হয়। প্রণীত হয় ইনডেমনিটি বিল। ইনডেমনিটি হলো কোনো বিচারকার্যকে বাধা প্রধান সংক্রান্ত অধ্যাদেশ বা আইন। কোনো অভিযান বা অভ্যুত্থানের ক্ষয়ক্ষতি আদালতের বহির্ভূত রাখার জন্য আইনসভা যে বিল পাস করে তাকেই ইনডেমনিটি বিল বলে। এই শব্দের অর্থ শাস্তি এড়াইবার ব্যবস্থা অর্থাৎ ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ হল সেই অধ্যাদেশ যার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের শাস্তি এড়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

এই দায়মুক্তি আইন বাতিলের দিবসটি কেন আমরা স্মরণ করছি। কারণ এটি প্রণয়ন করেছিল খুনিদের প্রধান খলনায়ক খন্দকার মোশতাক আহমেদ। অর্থাৎ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা হলে হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের আইনি ব্যবস্থা থেকে শাস্তি এড়ানোর জন্য বাংলাদেশে এ আইন করা হয়েছিল। তখন বাংলাদেশে সংসদ অধিবেশন না থাকায় আওয়ামী লীগের একজন ঘনিষ্ট রাজনৈতিক সহযোগী হয়েও বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতক করে মোশতাক আহমেদ অধ্যাদেশ আকারে ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৫ সালে এ আইন প্রণয়ন করে।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পরে খন্দকার মোশতাকই বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির পদ গ্রহণ করে। আইনটি ১৯৭৫ সালের ৫০ নং অধ্যাদেশ হিসেবে অভিহিত ছিল। ১৯৭৯ সালে আইনটি সংসদ কর্তৃক অনুমোদন দেওয়া হয়। এটি ১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই বাংলাদেশ সংবিধানের ৫ম সংশোধনীর পর সংশোধিত আইনে বাংলাদেশ সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যার ফলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। পরে ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর সপ্তম জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইনটি বাতিল করেন। যার ফলে বঙ্গন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ আবার খুলে যায়। ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ হাইকোর্ট সংবিধানের ৫ম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে।

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ যেদিন স্বাক্ষরিত হয় সেদিন ছিল শুক্রবার। ‘দি বাংলাদেশ গেজেট, পাবলিশড বাই অথরিটি’ লেখা অধ্যাদেশটিতে খন্দকার মোশতাক স্বাক্ষরিত। মোশতাকের স্বাক্ষরের পর অধ্যাদেশে তৎকালীন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব এম এইচ রহমানের স্বাক্ষর আছে। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শাহ আজিজুর রহমান পঞ্চম সংশোধনী বিলটি পেশ করে। এই ব্যক্তি রাজাকারদের মধ্যে অন্যতম ছিল।

অধ্যাদেশটিতে দুটি অংশ আছে- প্রথম অংশে বলা হয়েছে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরে বলবৎ আইনের পরিপন্থি যা কিছুই ঘটুক না কেন, এ ব্যাপারে সুপ্রিমকোর্টসহ কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না। দ্বিতীয় অংশে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি উল্লিখিত ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে যাদের প্রত্যয়ন করবে তাদের দায়মুক্তি দেওয়া হলো অর্থাৎ তাদের বিরুদ্ধে কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না। সংবিধানের গণতন্ত্র বিষয়টা খর্ব হবে বলে অনেকে বিরোধিতা করলেও রাষ্ট্রপতি একক ক্ষমতা বলে সংশোধনী বিল পাস করায়।

১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর মেজর জিয়াউর রহমান রাষ্ট্র ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণকারী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। ১৯৭৬ সালের ২৯ এপ্রিল জিয়া রাষ্ট্রপতি সায়েমের কাছ থেকে প্রধান সামরিক আইন প্রশাসকের দায়িত্ব নিয়ে নেয়। ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল রাষ্ট্রপতিকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করায় এবং নিজে রাষ্ট্রপতি হয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশসহ চার বছরে সামরিক আইনের আওতায় সব অধ্যাদেশ, ঘোষণাকে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে আইনি বৈধতা পায়। সংসদে উত্থাপিত আইনটির নাম ছিল সংবিধান (সংশোধনী) আইন, ১৯৭৯। এটি সংবিধানের চতুর্থ তফসিলের ১৮ অনুচ্ছেদে সংযুক্ত হয়েছিল, যা পঞ্চদশ সংশোধনীতে বিলুপ্ত হয়।

পঞ্চম সংশোধনীকে বৈধতা না দিলে জিয়াউর রহমানের আমলে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করা যেত কিন্তু জিয়াউর রহমান তা করেনি। এই সামরিক জান্তা বরং খুনিদের সুবিধা দিয়ে চাকরি দিয়েছে। জিয়াউর রহমানের মৃত্যুর পর বিচারপতি আবদুস সাত্তার, এইচ এম এরশাদ এবং ১৯৯১ সালে বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এলেও ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ বাতিল বা রহিত করেনি। ফলে দায়মুক্তি পেয়ে খুনিরা হত্যার কথা প্রকাশ্যে বলে বেড়াত।

এরশাদ ক্ষমতায় আসীন হলে ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বরের ইনডেমিনিটি অধ্যাদেশ বাতিল না করে আবার নিজের সুবিধার জন্য দ্বিতীয়বার ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে যা ১৯৮৬ সালের ১০ নভেম্বর জাতীয় সংসদে পাস হয় এবং সংবিধানের সপ্তম সংশোধনীতে এটি অন্তর্ভুক্ত হয়। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ থেকে ১৯৮৬ সালের ৯ নভেম্বর পর্যন্ত এরশাদ সরকারের জারিকৃত সকল প্রকার সামরিক আইন, অধ্যাদেশ, বিধি নির্দেশ ইত্যাদি বৈধতাদানের উদ্দেশ্যে দ্বিতীয় ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করা হয়। পরে চারদলীয় জোট সরকারের সময় ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৩ ‘যৌথ অভিযান দায়মুক্তি বিল ২০০৩’ নামে সবশেষে ইনডেমনিটি আইন পাস হয়।

বাংলাদেশে মোট তিনবার ইনডেমনিটি আইন পাস করা হয়। ২০১০ সালে এসব অধ্যাদেশকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়। এ ইনডেমিনিটি ছিল এমন একটি আইন যা ইতিহাসে লজ্জাজনক। বঙ্গবন্ধু ছাড়াও আব্রাহাম লিংকন, মহাত্মা গান্ধী, রাজিব গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, বেনজির ভুট্টো, বন্দর নায়েককে গুলি করে হত্যা করা হলেও সেসব দেশে ইনডেমনিটি আইন জারি করা হয়নি কিন্তু বাংলাদেশে এমনটি করা হয়েছিল। পৃথিবীর কোনো সংবিধানে লেখা নেই যে, খুনিদের বিচার করা যাবে না।

বাংলাদেশেই প্রথম ঘটেছিল এমনকি বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর ২০ বছর পার হলেও কোন রাষ্ট্রপতি বা সরকার প্রধান সেটি বাতিল না করে উল্টো নিজেদের সুবিধা নেওয়ার জন্য ইনডেমনিটি বহাল রাখে। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরে আইন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আবদুল মতিন খসরু ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বিল বাতিলের জন্য ‘দি ইনডেমনিটি রিপিল অ্যাক্ট-১৯৯৬’ নামে একটি বিল উত্থাপন করেন। ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর মাসে মানবতা ও সভ্যতা বিরোধী কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল হয়। পরে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারে শুরু হয়।

উল্লেখ্য, জিয়া সরকার খুনিদের বিচার না করে সরকারি উপর মহলে এবং বিদেশের দূতাবাসে চাকরির ব্যবস্থা করে। তারা পালিয়ে যায়; এখনও অনেকে পালিয়ে আছে। ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত চারদলীয় জোট সরকার যারা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারির সমর্থক তারা ক্ষমতায় এলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড মামলার কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে, বিচারকরা বিব্রত হতে থাকেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় লাভের পর আওয়ামী লীগ সরকার আবার এ বিচারকার্য চালিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০০৯ সালে লিভ-টু-আপিল-এর মাধ্যমে এ বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। আপিল শেষে বারো জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন মহামান্য আদালত।

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল দিবসে ঘৃণা জানাচ্ছি বঙ্গবন্ধুর খুনিদের। ওই ঘাতকদের তালিকা হলো- লে. কর্নেল শরিফুল হক (ডালিম), লে. কর্নেল আজিজ পাশা, মেজর এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ, মেজর বজলুল হুদা, মেজর শাহরিয়ার রশিদ, মেজর রাশেদ চৌধুরী, মেজর নূর চৌধুরী, মেজর শরিফুল হোসেন, কর্নেল কিসমত হাশেম, লে. খায়রুজ্জামান, লে. নাজমুল হোসেন, লে. আবদুল মাজেদ। বিচারের আগেই মৃত্যু ঘটে- খন্দকার মোশতাক আহমদ, মাহবুব আলম চাষী, ক্যাপ্টেন মোস্তফা, রিসালদার সৈয়দ সারওয়ার হোসেন, লে. ক. মোহাম্মদ আজিজ পাশা (বিচার চলাকালে পলাতক অবস্থায় তার মৃত্যু হয়)।২০১০ সালে বঙ্গবন্ধুর ৫ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। এরা হলো- মহিউদ্দিন আহমেদ, বজলুল হুদা, সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান এবং এ কে এম মহিউদ্দিন।

গতবছর (২০২০) কলকাতা থেকে ঢাকায় এলে ধরা পড়ে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলেছে ক্যাপ্টেন আব্দুল মাজেদের। অবশ্য মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৬ জন আসামি এখনও পলাতক৷ এরা হলোÑ খোন্দকার আব্দুর রশিদ, নূর চৌধুরী, শরিফুল হক ডালিম, রিসালদার মুসলেহ উদ্দিন, রাশেদ চৌধুরি এবং আবুল হাশেম মৃধা৷ তাদের গ্রেফতার করার জন্য ইন্টারপোলের পরোয়ানা রয়েছে৷ বঙ্গবন্ধুর এই পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার মধ্য দিয়ে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের দিনটি আরো বেশি সার্থকভাবে পালন করতে চাই আমরা।

লেখক : ইউজিসি পোস্ট ডক ফেলো, বিশিষ্ট লেখক, কবি, কলামিস্ট, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ এবং অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]

দৈনিক বান্দরবান
দৈনিক বান্দরবান